প্রধানমন্ত্রীকে চীন সফরের আমন্ত্রণ।

কালের সমাচার ডেস্ক।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমন্ত্রণ পেয়েছেন আগামী জুলাইয়ে চীনে যাওয়ার।

১০ জুন সোমবার, আগামী ১ জুলাই থেকে ৫ জুলাই প্রধানমন্ত্রীকে আনুষ্ঠানিক সফরের জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয় চীন সরকারের পাঠানো এক নোট ভার্বালে।

সরকারের এক কর্মকর্তা জানান, দুই দেশের সম্পর্ক মজবুত এবং ২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সফরের অগ্রগতি পর্যালোচনা করা এই সফরের উদ্দেশ্য।

প্রধানমন্ত্রী সফরকালে অংশ নেবেন ২ জুলাই ডালিয়ানে অনুষ্ঠিতব্য ওয়ার্ল্ড ইকোনোমিক ফোরামের গ্রীস্মকালীন বৈঠকে।

তিনি ৩ জুলাই বেইজিং যাবেন।

২৭ মার্চ চীনে যাওয়ার আমন্ত্রণ থাকলেও স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠানের জন্য সেই সময়ে বেইজিং সফরে যাওয়া হয়নি।

সরকারের একজন কর্মকর্তা এ বিষয়ে বলেন, ‘আমরা একটা ভালো সফর আশা করছি।

যদি সবকিছু ঠিক থাকে তবে আগামী ১ জুলাই প্রধানমন্ত্রী রওয়ানা দেবেন।’

তিনি বলেন, ‘২০১৬ সালে চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং ঢাকা সফর করেছেন এবং এটি তার ফিরতি সফর।’

তিনি জানান, দুই দেশের সম্পর্ক মজবুত এবং ২০১৬ সালের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিংয়ের সফরের অগ্রগতি পর্যালোচনা করা এই সফরের উদ্দেশ্য।

উল্লেখ্য, বাংলাদেশ এবং চীন শি জিনপিংয়ের সফরের সময় ২৭টি চুক্তি সই করে।

এর মধ্যে ছিল সহজ শর্তে ২ হাজার ৪০০ কোটি ডলারের বাণিজ্যিক ঋণের চুক্তি।

তার মধ্যে এরই মধ্যে ৫৭০ কোটি ডলারের ঋণ নিষ্পন্ন হয়েছে।

সরকারের অন্য একজন কর্মকর্তা বলেন, শেখ হাসিনা ২০১৪ সালে চীন সফর করেছিলেন এবং দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করেছিলেন চীনের প্রধানমন্ত্রী লি চেচিয়াংয়ের সঙ্গে।

প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে চীনের প্রেসিডেন্ট সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন।

তিনি বলেন, ‘এবারও এ ধরনের একটি ফরম্যাটে সফরটি হবে এবং এটি নিয়ে আমরা কাজ করছি।’

প্রসঙ্গত, গত জানুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী সংযুক্ত আরব আমিরাত, জার্মানি, জাপান,ব্রুনাই, সৌদি আরব এবং ফিনল্যান্ড সফর করেছেন।