স্কুলছাত্রীর অস্বাভাবিক মৃত্যু।

কালের সমাচার ডেস্ক।

যশোর সদরে পাঁচবাড়িয়া গ্রাম থেকে পুলিশ, গলায় ফাঁস দেওয়া অবস্থায় এক স্কুলছাত্রীর মরদেহ উদ্ধার করেছে।

নিহত স্কুলছাত্রীর নাম সুমাইয়া খাতুন নীলুফা। বাহাদুরপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির বাণিজ্য শাখার ছাত্রী ছিল নীলুফা।

১১ জুন মঙ্গলবার, এই তথ্য জানান যশোর উপশহর ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই ফারুক হোসেন।

তিনি বলেন, ‘ওই স্কুলছাত্রীর রুমের টেবিল থেকে একটি সুইসাইড নোট উদ্ধার করা হয়েছে।’

তিনি জানিয়েছেন রায়হান নামের একজনকে তার মৃত্যুর জন্য দায়ী করা হয়েছে।

মেয়েটির পরিবার দাবি করে, নীলুফার একই এলাকার বিল্লাল হোসেন এর কলেজপড়ুয়া ছেলে রায়হান এর সাথে প্রেমের সম্পর্ক ছিল।

দুই মাসের অন্তঃসত্ত্বা অবস্থায় রায়হান, তাকে বিয়ে করতে অস্কতি জানায়।এ কারনে সে ঘরের আড়ায় ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যা করেছে।

পুলিশে খবর দিলে লাশ উদ্ধার করে তারা যশোর জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যায়।

জেনারেল হাসপাতালের ডাক্তার সালেহীন কবীর জানান, ময়নাতদন্ত রিপোর্ট না পাওয়া পর্যন্ত বলা যাচ্ছে না মেয়েটি অন্তঃস্বত্ত্বা ছিল কিনা।

যশোর উপশহর ফাঁড়ির ইনচার্জ এসআই ফারুক হোসেন বলেন,

‘খবর পেয়ে আমরা ঘটনাস্থল থেকে মেয়েটির মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্যে হাসপাতালে আনি। মেয়েটি অন্তঃস্বত্ত্বা ছিল কিনা তা ডাক্তাররা বলতে পারবেন।’

যশোর কোতোয়ালি থানায় এই ঘটনায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়ের করা হয়েছে।